মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম

প্রিয় পাঠক, মুখের ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে আমরা বিভিন্ন ধরনের পদ্ধতি অবলম্বন করে থাকি। তবে অনেকেই জানিনা মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম সম্পর্কে। তাইতো আপনাদের সুবিধার্থে আজকে জানাবো মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম, তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে মসুর ডাল, মসুর ডাল দিয়ে রূপচর্চা, ব্রনের দাগ দূর করতে মসুর ডাল সহ প্রয়োজনীয় কিছু ত্বক ফর্সার বিশেষ টিপস।
মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম
আশা করছি আজকের এই আর্টিকেলটি মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম পড়ে আপনি প্রয়োজনীয় তথ্য খুঁজে পাবেন এবং উপকৃত হবেন। তাহলে দেরি না করে নিম্নে সম্পূর্ণ পোস্টটি বিস্তারিত পড়তে থাকুন।

ভূমিকা

মসুর ডালে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন পাওয়া যায়। এছাড়াও মসুর ডালে আমিষের ভালো উৎস এটা আমরা সকলেই জানি কিন্তু আপনি জানেন কি মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম সম্পর্কে। দীর্ঘদিন ধরে রূপচর্চার কাজে মসুর ডালের ব্যবহার হয়ে আসছে। ত্বকে জমে থাকা ময়লা ও বলিরেখা দূর করে ত্বককে ভেতর থেকে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। যাদের স্কিন ড্রাই মসুর ডাল তাদের জন্য হতে পারে দারুন একটা সমাধান। মসুর ডাল ত্বকের মৃত কোষ দূর করে স্কিনকে মসৃণ এবং উজ্জ্বল করে। মসুর ডালের উপকারিতা গুন সম্পর্কে বলে শেষ করা যাবে না। মসুর ডাল যেমন আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারীর ঠিক তেমনি ত্বকের জন্য দারুন কার্যকর।

তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে মসুর ডাল

ত্বকের জন্য মসুরের ডাল একটি অত্যন্ত কার্যকর প্রাকৃতিক উপাদান। মসুরের ডালে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিইনফ্ল্যামেটারি উপাদান ত্বকের অতিরিক্ত তেল নিঃসরণ করে ব্রণ এবং অন্যান্য ত্বকের সমস্যা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। এছাড়াও ত্বককে উজ্জ্বল ও মসৃণ করতে দারুণ উপকারী। অনেকেই জানে না মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম সম্পর্কে। ঘরোয়া কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করে ডাল দিয়ে তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেওয়া যায়। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে মসুর ডাল এর কিছু ফেসপ্যাক সম্পর্কে।

মসুর ডাল ও দুধের ফেসপ্যাকঃ
২ চামচ মসুর ডালের পেস্ট বা গুড়া সঙ্গে ৩ চামচ পরিমাণ দুধ মিশিয়ে একটি ঘন পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্টটি সম্পূর্ণ মুখে লাগিয়ে ১০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত এভাবে ২ - ৩ বার এই পদ্ধতিতে ব্যবহার করলে ভালো ফলাফল পাবেন।

মসুর ডাল হলুদ এবং মধুর ফেসপ্যাক
২ চামচ মসুর ডালের সঙ্গে ১ চামচ পরিমাণ হলুদ গুড়া এবং ২ চামচ পরিমাণ মধু মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করে নিন। এবার এই পেস্টটি সম্পূর্ণ মুখে এবং গলায় লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর পর পরিষ্কার করে ধুয়ে ফেলুন।


মসুর ডাল,বেসন ও লেবুর রসের ফেসপ্যাক
৩ চামচ মসুর ডাল ৩ চামচ বেসন এবং পরিমাণ মতো লেবুর রস মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। এরপরে মিশ্রণটি সম্পূর্ণ মুখে লাগিয়ে শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। এবার পরিষ্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই পদ্ধতিতে কিছুদিন ব্যবহারেই ত্বকের অতিরিক্ত তেল কমে যাবে।

মসুর ডাল টক দই ও হলুদের ফেসপ্যাক
সমপরিমাণে মসুর ডাল, টক দই এবং হলুদ মিশিয়ে একটি ঘন মিশ্রণ তৈরি করে সম্পূর্ণ মুখে লাগিয়ে শুকিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি তৈলাক্ত ত্বকের অতিরিক্ত তেল মিশ্রণ করতে এবং ত্বককে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করেন।

উপরোক্ত আলোচনা থেকে জানতে পেরেছেন তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে মসুর ডাল কতটা উপকারী। উপরোক্ত পদ্ধতিতে গুলো অবলম্বন করে খুব সহজে তোলাক্ত ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূর করা সম্ভব । তাই যাদের ত্বক অতিরিক্ত তৈলাক্ত তারা উপরের পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করতে পারেন।

তৈলাক্ত ত্বকে মসুর ডালের উপকারিতা

  • ত্বকে অতিরিক্ত তেল শোষণ করে।
  • ব্রণ ও অন্যান্য ত্বকের সমস্যা দূর করে।
  • ত্বকের মৃত কোষগুলি অপসারণ করে।
  • ত্বককে মসৃণ ও উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে।
  • ত্বকের আদ্রতা ঠিক রাখে।
  • ত্বকের অবাঞ্ছিত লোম দূর করে।
  • ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করে।

মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা হওয়ার উপায়

মসুর ডাল একটি প্রোটিন সমৃদ্ধ ফসল। দীর্ঘদিন ধরে ত্বকের যত্নে মসুর ডালের ব্যবহার হয়ে আসছে মসুর ডালে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট,কার্বোহাইড্রেট, ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড, ভিটামিন এ,সি,ই,কে এবং থায়ামিন বিভিন্ন উপাদান শরীরে জন্য দারুন উপকারী। এছাড়াও ত্বকের জমে থাকা ময়লা ও বয়সের ছাপ দূর করতে মসুর ডালে উপকারিতা অনেক সেই সঙ্গে ত্বকের ভিতরে থাকা ক্ষতিকর উপাদান বের করে ত্বককে সুন্দর ফর্সা ও কোমল করে তুলতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে ।


আপনারা জেনে অবাক হবেন যে অতীত কালে বিয়ে কয়েকদিন আগে থেকে বিয়ের কনের মুখে মসুর ডালে পেস্ট লাগানো হতো। এর অন্যতম কারণ হলো তাৎক্ষণিক ফর্সা ত্বক পাওয়া যায়। এ কারণে মসুর ডাল দিয়ে রূপচর্চা দিন দিন বেড়েই চলছে। আজকের এ আর্টিকেলে মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করেছি। চলুন তাহলে জেনে নেই মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা হওয়ার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত।

মসুর ডাল ও কাঁচা হলুদঃ ১ চামচ মসুর ডালের পেস্টের সঙ্গে ১ চামচ পরিমাণ কাঁচা হলুদ এবং সামান্য পরিমাণ হলুদ গুড়া মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করে নিন । এবার এই মিশ্রণটি সম্পূর্ণ মুখে এবং গলায় ভালো করে লাগিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট রেখে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলন।

মসুরের ডাল ও কফি পাউডারঃ ২ চামচ মসুর ডালের সঙ্গে এক চামচ পরিমাণ কফি পাউডার এবং পরিমাণ মতো চালের গুড়া মিশিয়ে ভালোভাবে একটি পেস্ট তৈরি করে নিন। আপনি চাইলে এই পেস্টটি কাঁচা দুধ ব্যবহার করতে পারেন। এবার এই পেস্টটি সম্পূর্ণ মুখে লাগিয়ে ১০ মিনিটের জন্য রেখে দিন। কফি পাউডার এবং চালের গুড়া ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করার পাশাপাশি অসাধারণ স্ক্রাবারের কাজ করে।

মসুর ডাল ও মধুঃ ত্বকের শুষ্কতা ও রুক্ষতা দূর করে ত্বককে উজ্জ্বল এবং মসৃণ করতে সাহায্য করে এই ফেসপ্যাক। .১ চামচ পরিমাণ মসুর ডালের পেস্ট অথবা গুড়ার সঙ্গে সমপরিমাণ মতো মধু মিশিয়ে তৈরি করুন ফেসপ্যাক। এরপরে এই ফেসপ্যাকটি ত্বকে লাগিয়ে ধীরে ধীরে হালকা মাসাজ করুন ১০ থেকে ১৫ মিনিট হালকা মাসাজ করার পর হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে পরিষ্কার করে ধুয়ে নিন।

মসুর ডাল ও শসার রসঃ মসুর ডালের গুড়ার সঙ্গে শসার রস মিশিয়ে এটি মিশ্রণ তৈরি করে নিন। এই মিশ্রণটি ত্বকে লাগিয়ে হালকা করে মাসাজ করুন। ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূর করার পাশাপাশি ত্বকে ফর্সা এবং মসৃণ করতে সাহায্য করে এই ফেসপ্যাক। তাই সপ্তাহে অন্তত তিনদিন এই পদ্ধতিতে ত্বকে ব্যবহার করলে খুব সহজেই অতিরিক্ত তেল দূর হয়ে যাবে।

মসুরের ডাল এবং চন্দন পাউডারঃ দুই চামচ পরিমাণ মসুরের ডাল সারা রাত দুধে ভিজিয়ে রাখুন সকালে এই দুধে ভেজানো মসুরের ডাল ভালো করে পেস্ট তৈরি করে নিন। মসুর ডালের পেস্টের সঙ্গে ২ চামচ পরিমাণ চন্দন পাউডার ও কমলালেবুর খোসার পাউডার ভালোভাবে মিশিয়ে একটি ফেসপ্যাক তৈরি করুন। সম্পূর্ণ মুখে লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিটের জন্য রেখে দিন শুকিয়ে গেলে আলতো করে হালকা মাসাজ করে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত তিন দিন ব্যবহার করুন এর ফলে মুখের অবাঞ্ছিত লোম খুব সহজে দূর হয়ে যাবে।

মসুরের ডাল ও অলিভ অয়েলঃ মসুর ডালের পেস্টের সঙ্গে দুই চামচ পরিমাণ অলিভ অয়েল মিশিয়ে ভালো করে পেস্ট তৈরি করে নিন। আপনি চাইলে এই পেস্টের সঙ্গে পরিমাণ মতো কাঁচা দুধ মেশাতে পারেন ১৫ থেকে ২০ মিনিট অপেক্ষা করে হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এর ফলে ত্বকের উজ্জ্বলতা দ্রুত সময়ে বৃদ্ধি পাবে।

মসুর ডাল দিয়ে রূপচর্চা

মসুর ডাল দিয়ে ত্বকের যত্ন নেওয়ার জন্য প্রথমে আপনাকে মসুর ডাল ভালো করে মিহি করে পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে। এবার ২ চামচ পরিমাণ মসুর ডালের পেস্ট নিতে হবে এবং ১ চামচ পরিমাণ লেবুর রস মসুর ডালে পেস্টের সঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। আপনি চাইলে এই মিশ্রণে লেবুর রসের পরিবর্তে গোলাপজল বা মধু ব্যবহার করতে পারেন।


এরপরে এই মিশ্রণটি সম্পূর্ণ মুখে লাগানোর পাশাপাশি হাতে-পায়ে বা সম্পূর্ণ শরীরে লাগাতে পারেন। এর ফলে ত্বকের পাশাপাশি শরীরেও উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে। এভাবে মসুর ডালকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন রূপচর্চার কাজে ব্যবহার করা যায়। তাই আপনারাও আপনাদের রূপচর্চার কাজে মসুর ডালের বিভিন্ন ফেসপ্যাক ব্যবহার করুন।

ব্রণের দাগ দূর করতে মসুর ডাল

উপরোক্ত আলোচনা থেকে জানতে পেরেছেন মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম সম্পর্কে এবার আপনাদের জানাবো ব্রণের দাগ দূর করতে মসুর ডাল সম্পর্কে। রূপচর্চার কাজে মসুর ডালের উপকারিতার কথা বলে শেষ করা যাবে না। চলুন তাহলে জেনে নেই ব্রনের দাগ দূর করতে মসুর ডালের কিছু ফেসপ্যাক সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে।
  • মসুর ডালের গুড়া, অলিভ অয়েল, গ্লিসারিন ও গোলাপজল মিশিয়ে একটি ফেসপ্যাক তৈরি করে নিন। এবার এই ফেসপ্যাকটি মুখে ব্যবহার ব্যবহার করুন। যাদের ত্বক তৈলাক্ত তাদের এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার না করা ভালো।
  • মসুরের ডাল বেসন ও মধু মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে সম্পূর্ণ মুখে লাগিয়ে রাখুন ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর হালকা স্ক্রাব করে পরিষ্কার করে ধুয়ে ফেলুন এই ফেসপ্যাকটি ব্রণের দাগ কমাতে খুবই উপকারী।
  • মসুর ডাল এবং লেবুর রস মিশিয়ে ত্বকে ব্যবহার করলে ব্রনের দাগ দূর করার পাশাপাশি ত্বকে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। যাদের ত্বক তৈলাক্ত তারা এর সঙ্গে মধু মিশিয়ে ব্যবহার করলে উপকার পাবেন।
  • মসুরের ডাল ও গাঁদা ফুলের পাপড়ি একসাথে পেস্ট তৈরি করে মুখে লাগালে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে। সপ্তাহ দুই থেকে তিন দিন এভাবে ব্যবহার করলে ত্বকের উজ্জ্বলতা যেমন বৃদ্ধি পাবে তেমনি ব্রণের দাগ দূর দূর হয়ে যাবে।
  • এছাড়াও মসুরের ডাল ত্বকের ব্ল্যাক এবং হোয়াইট হেডস দূর করতে সাহায্য করে।
তাই মসুর ডালের ফেসপ্যাক ত্বকে ব্রনের দাগ দূর করার পাশাপাশি ত্বকের ব্ল্যাক ও হোয়াইটহেড দূর করে। তবে সপ্তাহে একাধিক বার ব্যবহারে ত্বকে শুষ্ক ও রুক্ষ করে ফেলে। তাই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা প্রয়োজন যাদের ত্বক অতি সংবেদন এবং অতিরিক্ত শুষ্ক তাদের এই মসুর ডাল ব্যবহার না করাই ভালো।

মসুর ডালের নাইট ক্রিম

অনেকেই ত্বকের যত্নে বিভিন্ন ধরনের নাইট ক্রিম ব্যবহার করে।কিন্তু এ সকল নাইট ক্রিমের বিভিন্ন ধরনের কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয়। এর ফলে ত্বকের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা সৃষ্টি হয়। তাই অনেকেই মসুর ডালের নাইট ক্রিম সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। এই মুসুর ডালের নাইট ক্রিম ত্বকে ব্যবহারে কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই। একবার মসুর ডালের নাইট ক্রিম তৈরি করে একমাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করে ব্যবহার করতে পারবেন। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক মসুর ডাল নাইট ক্রিম তৈরি করার উপায় সম্পর্কে

মসুর ডালের নাইট ক্রিম তৈরির নিয়ম
২ চামচ মসুর ডালের গুড়া, ১ চামচ পরিমাণ অ্যালোভেরা জেল, অলিভ অয়েল, ৩ থেকে ৪ টি ভিটামিন ই ক্যাপসুল, গ্লিসারিন, গোলাপজল, সামান্য পরিমাণ লেবুর রস, পরিমাণ মতো চন্দন পাউডার এ সকল উপকরণ একসাথে ভালো করে মিশিয়ে তৈরি করে নিন নাইট ক্রিম। এবার পরিষ্কার একটি কৌটার ভরে ফ্রিজে সংরক্ষণ করতে পারেন। প্রতিদিন রাত্রে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ত্বক ভালো করে পরিষ্কার করে এই মসুর ডালের নাইট ক্রিমটি ব্যবহার করুন। কিছুদিন ব্যবহারে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির পাশাপাশি ত্বকে ব্রণের দাগ,মেছতা,কালো দাগ সহ বিভিন্ন সমস্যা দূর হয়ে যাবে।

মসুর ডালের উপকারিতা

মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম এর পাশাপাশি মসুরের ডাল খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। মসুরের ডালে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন ও ফাইবার রয়েছে যা কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়। এছাড়াও মসুর ডালে আয়রন ও ফলিক এসিড পাওয়া যায়। মসুর ডালের ফাইবারের উপকারিতাও অনেক বেশি। চিনির পরিমাণ কমিয়ে ডায়াবেটিস কমাতে সাহায্য করে। নিয়মিত মসুর ডাল খেলে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি কমে মসুরের ডাল গর্ভবতী মায়েদের জন্য খুবই উপকারী।

শেষ কথা

প্রিয় বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলের আলোচনায় মসুর ডাল দিয়ে ত্বক ফর্সা করার উপায় - মসুর ডালের নাইট ক্রিম সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পেরেছেন। এছাড়াও  এ আর্টিকেলে আরো তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে মসুর ডাল, মসুর ডালের উপকারিতা, ব্রনের দাগ দূর করতে মসুর ডাল, রূপচর্চা মসুর ডাল ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিতভাবে জানতে পেরেছেন। আজকেরে আর্টিকেলটি পরে যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করবেন। এই ধরনের প্রয়োজনীয় মূলক তথ্য পেতে নিয়মিত আমার লেখা আর্টিকেল পড়ুন। আশা করি আমার লেখা আর্টিকেল পড়ে উপকৃত হবেন। সম্পূর্ন আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url