মেসতা দূর করার ১০ টি সেরা উপায় - মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায়

 

প্রিয় পাঠক, আপনি কি মেছতার সমস্যা নিয়ে চিন্তিত? বিভিন্ন কারণে মুখের মধ্যে মেছতা পড়ে যায় এতে করে দেখতে অনেকটা খারাপ লাগে। কিন্তু অনেকে মেছতা দূর করার সহজ উপায় কিংবা মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জানেনা। তাই আপনাদের সুবিধার্থে এই আর্টিকেলে মেছতা দূর করার সহজ উপায় এবং মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য আলোচনা করেছি।

মেছতা দূর করার ১০ টি সহজ উপায় - মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায়
আশা করছি মেছতা দূর করার সহজ উপায় এবং মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় এই আর্টিকেলটি পরে আপনি উপকৃত হয়েছেন। তাহলে চলুন আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে মেছতা দূর করার সহজ উপায় সহ আরো কিছু তথ্য জেনে নেওয়া যাক।

ভূমিকা

মুখের মেছতা সমস্যায় অনেকেই ভোগেন। মেছতা ত্বকের সৌন্দর্য নষ্ট করে দেয়। এতে যখন মুখে মেছতা বের হয় তখন আপনি চিন্তিত হয়ে পড়েন। যারা ত্বকের যত্নের অবহেলা করেন তাদের ক্ষেত্রে এই মেছতার সমস্যা বেশি দেখা যায়। মেছতার দাগ দীর্ঘস্থায়ী হয় এবং সহজে স্কিন থেকে সরতে চায় না। কিন্তু মেছতা দূর করার সহজ উপায় রয়েছে যে উপায় গুলো আপনি অনুসরণ করতে পারেন।
তাহলে খুব সহজেই মুখের মেছতা দূর করতে পারবেন। মেছতা দূর করার সহজ উপায় গুলোর সম্পর্কে জানতে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়তে থাকুন। নিচে মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

মেছতা হওয়ার কারণ কি

ত্বকে যে সমস্যা গুলো বেশি দেখা যায় তার মধ্যে একটি হল মেছতা। মেছতা তোকে সৌন্দর্য এবং উজ্জ্বলতা নষ্ট করে। বিভিন্ন কারণে মেছতা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। মেছতার সমস্যার জন্য নারীরা খুব দুশ্চিন্তা থাকে। মেছতা সমস্যা নারী-পুরুষ উভয় হতে পারে। আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক মেছতা হওয়ার কারণগুলো কি?
  • বংশগত কারণে মেছতা হতে পারে।
  • থাইরয়েড হরমোন বৃদ্ধি পেলে।
  • অত্যাধিক জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল খেলে।
  • গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তন।
  • সানস্ক্রিম বা ছাতা ছাড়া সূর্যের আলো সংস্পর্শে যাওয়া।
  • হরমোন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি নেওয়া।
  • ত্বকে নিয়মিত যত্ন না করা।

মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায়

মেছতা আমাদের ত্বকের স্বাভাবিক সৌন্দর্য নষ্টের জন্য দায়ী। মেছতা নামক এই শত্রু ত্বকের উজ্জ্বলতা নষ্ট করে। মেছতা দূর করার জন্য নারী পুরুষ সকলেই নানা ধরনের ভোগান্তি পোহাতে হয়। তবে পুরুষের তুলনায় নারীরা মেছতার সমস্যায় একটু বেশি ভোগেন। সেজন্যই এখন আপনাদের মাঝে মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জানাবো। কয়েকটি ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করে সহজেই মেছতা দূর করতে পারবেন।

লেবুর রস
লেবুর রস ত্বককে উজ্জ্বল করতে এবং ত্বকের কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করে। মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় এর মধ্যে লেবুর রস অন্যতম। তাই আপনি যদি মুখে মেছতা দূর করতে চান তাহলে লেবুর রস অথবা লেবুর রস দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করে মেছতার ওপর লাগাতে পারেন। কারণ লেবুর রসের উচ্চমাত্রায় সাইট্রিক এসিড যা ত্বকের অতিরিক্ত তেল শোষণ করে এবং ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ থেকে ত্বককে সুরক্ষা করে। লেবুর রস ব্যবহারে খুব সহজে মেছতা ভালো হয়।

হলুদ
হলুদকে আমরা রান্নার কাজে মসলা হিসেবে ব্যবহার করি কিন্তু হলুদে আয়ুর্বেদিক ঔষধি গুণ রয়েছে। যা ত্বকের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। হলুদে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট নামক উপাদান রয়েছে যা মেছতা দূর করতে সাহায্য করে। কাঁচা হলুদের পেস্ট তৈরি করে সম্পূর্ণ মুখে বা মুখের যেখানে মেছতা রয়েছে সেখানে লাগিয় ৫ থেকে ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহার করলে দ্রুত মেছতা ভালো হয়ে যাবে।

টমেটো
টমেটোতে থাকা ভিটামিন সি ত্বকের কালো দাগ দূর করে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে। তাই টমেটো পেস্ট তৈরি করে ত্বকে ১০ থেকে ১৫ মিনিট ম্যাসাজ করে এবং ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত ৩/৪ দিন ব্যবহার করলে মেছতা দূর হবে।
পাকা কলার খোসা
পাকা কলার খোসা অনেকে অপ্রয়োজনীয় ভেবে ফেলে দেয় কিন্তু এটি মুখের মেছতা দূর করতে দারুণ উপকারী এটা অনেকেই জানেনা। পাকা কলার খোসা ত্বকে মেছতার অংশে হালকা করে ম্যাসাজ করুন এবং ১০ মিনিটের জন্য রেখে দিন। ঠান্ডা পানি দিয়ে পরিষ্কার করে ধুয়ে নিন। এতে মেছতা দূর হওয়ার পাশাপাশি ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে।

উপরোক্ত এগুলো মূলত মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায়। এই উপায় গুলো নিয়মিত ব্যবহার করলে খুব সহজেই মেয়েদের মেছতা ভালো হয়ে যাবে। সব সময় চেষ্টা করবেন ত্বকের যত্ন নেওয়ার তাহলে আর কোনো খারাপ প্রভাব ত্বকে পড়বে না ত্বকের উপর। আশা করি উপরোক্ত আলোচনা থেকে মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জানতে পেরেছেন।

তৈলাক্ত ত্বকের মেছতা দূর করার সহজ উপায় - মেছতা দূর করার ঘরোয়া পদ্ধতি

তৈলাক্ত ত্বকের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হয়। এর মধ্যে মেছতার সমস্যা অন্যতম। কারণ সব সময় ত্বক তেলতেলে থাকে যার কারণে অনেক ধরনের ময়লা জমে। তৈলাক্ত ত্বকে সূর্যের তাপ শোষণ করতে পারে না এবং ত্বকের ওপর কালো দাগ পড়ে যায়। এর ফলে তৈলাক্ত ত্বকে মেছতা বেশি হয়ে থাকে। তবে তৈলাক্ত ত্বকের মেছতা দূর করার সহজ উপায় রয়েছে যেগুলো নিয়ম মেনে ব্যবহার করলে এই মেছতা থেকে দ্রুত মুক্তি পাবেন। তাহলে জেনে নিন তৈলাক্ত ত্বকের মেছতা দূর করার কিছু উপায় সম্পর্কে।

অ্যালোভেরা
তৈলাক্ত ত্বকে মেছতা দূর করার উপায় এর মধ্যে অ্যালোভেরা অন্যতম। মুখের মেছতা দূর করতে অ্যালোভেরা জেল মুখে মেছতার ওপর লাগিয়ে রাখতে পারেন। তাহলে এতে করে দ্রুত মুখে মেছতা দূর হয়ে যাবে। নিয়মিত ব্যবহারের ফলে মেছতার অনেক ভালো ফলাফল পাবেন।

টক দই ও মধু
মুখে মেছতা দূর করতে টক দইয়ের জুরি নেই। ২ চামচ টক দইয়ের সঙ্গে ১ চামচ মধু মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে এবং মুখে লাগিয়ে ১৫/২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। সপ্তাহে অন্তত২/৩ দিন ব্যবহার করলে খুব ভালো ফলাফল পাবেন।

পাকা পেঁপে
তৈলাক্ত ত্বকে মেছতা দূর করার উপায় এর মধ্যে আরেকটি অন্যতম উপায় হলো পাকা পেঁপে। পাকা পেঁপে পেস্ট তৈরি করে সেটা মুখে লাগিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। এরপর পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে করে তৈলাক্ত ত্বকে দ্রুত মেছতা ভালো হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মুলতানি মাটি
মুলতানি মাটি আমাদের ত্বকের জন্য বেশ কার্যকরী। মুলতানি মাটি ত্বকের মরা কোষ পরিষ্কার করতে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে। মুলতানি মাটি ত্বকের অতিরিক্ত তেল শোষণ করে নিয়ে ত্বককে ভেতর থেকে উজ্জ্বল ও পরিষ্কার করে। মুলতানি মাটির ফেসপ্যাক তৈরি করে মেছতার দাগের উপর লাগাবেন। এভাবেই নিয়মিত ব্যবহার করলে ইনশাআল্লাহ মেছতা দূর হয়ে যাবে।

আলুর রস 
মেছতার দাগ দূর করার পাশাপাশি মুখে ব্রণের দাগ দূর করতেও সাহায্য করে। এছাড়াও চোখের নিচে জমে থাকা কালো দাগ (ডার্ক সার্কেল) দূর করতে সহায়তা করে। আলুর রস সরাসরি মেছতার ওপর লাগিয়ে রাখতে পারবেন অথবা যেকোনো ফেসপ্যাক এর সঙ্গে আলুর রস ব্যবহার করতে পারবেন।

কমলালেবু ও দুধ
ভিটামিন সি মুখের মেছতা সহ বিভিন্ন ধরনের দাগ দূর করতে সাহায্য করে। কমলালেবুতে সাইট্রিক এসিডের পাশাপাশি ভিটামিন সি ও রয়েছে। কমলালেবুর খোসা রোদে শুকিয়ে গুড়ো করে নিতে হবে এবং এর সাথে দুধ মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করে মুখে ব্যবহার করুন। এই ফেসপ্যাকটি প্রতিদিন ব্যবহার করলে মেছতা সহ ত্বকের ব্রণের দাগ দূর করতে সাহায্য করবে।
এছাড়াও তৈলাক্ত ত্বকের মেছতা দূর করার সহজ উপায় আরো অনেক ধরনের উপায় রয়েছে। তবে উপরোক্ত উপায় গুলো আপনি নিয়ম মেনে ব্যবহার করলেই খুব সহজে এবং খুব দ্রুত ত্বকের মেছতা দূর করতে পারবেন। সব সময় চেষ্টা করবেন ত্বকের যত্ন নেওয়া এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার। কারণ মুখে কোন ধরনের সমস্যা দেখা দিলে সেটা দেখতে ভালো লাগে না এবং মুখে সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায়।

মেছতা দূর করার ক্রিমের নাম

আজকের এই আর্টিকেলে মেছতা দূর করার সহজ উপায় সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। তবে অনেকেই মেছতা দূর করার ক্রিমের নাম সম্পর্কে জানতে চায়। তাই এখন আপনাদের মেছতা দূর করার ভালো মানের কয়েকটি মেছতা দূর করার ক্রিমের নাম সম্পর্কে জানিয়ে দেবো। যে ক্রিম গুলো ব্যবহার করে আপনি মেছতা দূর করতে পারবেন।
  • MelaCare
  • Betavet-N
  • Melatrin Cream
  • Neocort
  • Trimela
  • Melasma Cream
মেছতার দাগ দূর করার জন্য এই ক্রিমগুলো দারুন উপকারী। এই ক্রিম গুলো ব্যবহার করলে মেছতার দাগ ভালো হয়ে যাবে। তাই এই ক্রিম গুলো আপনি নিশ্চিন্তে মেছতার দাগ দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন। এই ক্রিমগুলো আপনি যে কোন কসমেটিকের দোকানে পেয়ে যাবেন।

মেসতা দূর করার ঔষধ

অনেকেই মেছতার দাগ দূর করার ঔষধ সম্পর্কে জানতে চায় কিংবা ওষুধ খাওয়ার মাধ্যমে মেছতা দূর করতে চায়। তবে আমার মতে আপনি যদি মেছতা দূর করতে চান তাহলে অবশ্যই চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ঔষধ খেতে পারেন। আপনি কখনোই ইন্টারনেটে ঔষধের নাম দেখে সেই ঔষধ গুলো নিজে থেকে কিনে খাওয়ার চেষ্টা করবেন না। কারণ এতে শরীরে মারাত্মক ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
তবে আপনি মেছতা দূর করার ঔষধ না খেয়ে ও উপরোক্ত অংশে আলোচিত মেছতা দূর করার সহজ উপায় কিংবা মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় পদ্ধতি গুলো ব্যবহার করতে পারেন। উপরোক্ত সকল ঘরোয়া উপায় গুলো তে কোন প্রকার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই। তাই মেছতা দূর করার ক্ষেত্রে ঘরোয়া উপায় গুলো অবলম্বন করুন।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক আজকের এই আর্টিকেলে আপনারা জানতে পেরেছেন মেছতা দূর করার সহজ উপায় এবং মেয়েদের মেছতা দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য। আশা করি আর্টিকেলটি পড়ে আপনি মেছতা দূর করার উপায় সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য জানতে পেরেছেন এবং উপকৃত হয়েছেন। এই আর্টিকেলে মেছতা দূর করার সকল ধরনের তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। এই ধরনের প্রয়োজনীয় তথ্য পেতে নিয়মিত আমার লেখা হাসপাতাল আর্টিকেলগুলো পড়ুন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url