লেবুর ২০ টি উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানুন

 

প্রিয় পাঠক, আপনি কি লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জানেন না। তাহলে আমার লেখা এই লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ে ফেলুন। আজকের আর্টিকেলে লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা এবং প্রতিদিন লেবু খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে তথ্য আলোচনা করেছি।
লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা
লেবু অনেক পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ একটি ফল। আশা করছি লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা আর্টিকেলটি পড়ে আপনি লেবুর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন। তাহলে দেরি না করে লেবুর সম্পর্কে জানতে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন।

ভূমিকা

লেবু পছন্দ করে না এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম আছে। লেবু আমাদের সকলেরই কাছে সুপরিচিত একটি ফল। ভাত দিয়ে খাওয়া সহ বিভিন্ন কাজে লেবু ব্যবহার করা হয়। লেবু যেমন সহজলভ্য ফল তেমনি গুণের শেষ নেই। প্রতিদিন লেবু খাওয়ার উপকারিতা অনেক। লেবু ভিটামিন সি সমৃদ্ধ একটি ফল । লেবুর রস বিভিন্ন প্রকার ঔষধ তৈরিতে ব্যবহার হয়ে থাকে। এছাড়াও ঠান্ডা, সর্দি কাশি, স্কার্ভি স্কিন কেয়ার ইত্যাদি লেবু ব্যবহার করা হয়।
লেবু আমাদের শরীরে ভিটামিন সি এর ঘাটতি পূরণ করতে সহায়তা করে। লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা রয়েছে অনেক। লেবু আমাদের শরীরে নানা ধরনের রোগ প্রতিরোধ দূর করতে সক্ষম। এছাড়াও অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য লেবু খুবই উপকারে একটি ফল।

লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা

উপকারিতাঃ
  • লেবু স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।
  • লেবুর রস শরীলে ওজন কমাতে লেবু অনেক কার্যকরী।
  • লেবুর রস ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।
  • লেবু ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করতে সাহায্য করে।
  • লেবু আলসার ও বুক জ্বালা প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে।
  • লেবু কিডনির পাথর দূর করতে কার্যকরী ভূমিকা রাখে।
  • লেবুর রস রক্তের খারাপ কোলেস্টেরল কমায়।
  • লেবুতে ভিটামিন সি উপাদান থাকে যা আমাদের শরীরে অ্যান্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করে। 
  • লেবু শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে অতুলনীয়।
অপকারিতাঃ
  • অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খাওয়ার ফলে পেটে অ্যাসিডিটির সমস্যা সৃষ্টি হয়। অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খাওয়া থেকে বিরত থাকুন এবং পরিমাণ মতো লেবু খাওয়ার চেষ্টা করুন।
  • যাদের এসিডিটির সমস্যা রয়েছে তারা অতিরিক্ত লেবু খাওয়া থেকে বিরত থাকুন কারণ অতিরিক্ত লেবু খাওয়ার ফলে আপনার বুক জ্বালা করতে পারে।
  • অতিরিক্ত লেবুর শরবত খাওয়ার কারণে পেটে ব্যথার সৃষ্টি হতে পারে।
  • ওজন নিয়ন্ত্রণ করার জন্য দীর্ঘদিন লেবুর রস পান করার কারণে আপনার শরীলে কার্বোহাইড্রেট ও অন্যান্য পুষ্টি ঘাটতে দেখা দিতে পারে।

ত্বকে লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা

ত্বকে লেবুর উপকারিতাঃ
  • লেবু মুখের কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করে।
  • লেবুর রস মাথার খুশকি দূর করতে সাহায্য করে।
  • লেবুতে ভিটামিন সি রয়েছে যা ত্বকের বয়সের ছাপ দূর করে এবং রোদে পোড়া কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করে।
  • লেবুর রস শরীরের বিভিন্ন স্থানের কালচে দাগ দূর করে।
  • লেবুর রস ঠোঁটে ব্যবহার করলে ঠোঁটের কালো দাগ দূর হয়ে যায়।
ত্বকে লেবুর অপকারিতাঃ
লেবু আমাদের ত্বকের জন্য খুবই কার্যকরী। কিন্তু সব ভালো খারাপ দিক রয়েছে। লেবু কখনো সরাসরি মুখে ব্যবহার করবেন না। কারণ এতে আপনার ত্বক পুড়ে যেতে পারে। বিভিন্ন উপাদানের সঙ্গে লেবু মিশিয়ে ত্বকে ব্যবহার করুন। অনেকের লেবুতে এলার্জি থাকতে পারে এ কারণে তারা ত্বকে লেবুর ব্যবহার না করাই ভালো।

প্রতিদিন লেবু খাওয়ার উপকারিতা

আমাদের শরীরের জন্য লেবু অনেক কার্যকরী কারণ লেবুতে রয়েছে ভিটামিন সি। পেট পরিষ্কার রাখার পাশাপাশি দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ভিটামিন সি অনেক উপকারী। এছাড়াও লেবুর রসের দারুন কিছু উপকার রয়েছে। তাহলে জেনে নিন প্রতিদিন লেবু খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য।
  • লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে। লেবুর রস শরীরে কোলাগেন তৈরিতে সহায়তা করে। শরীরের চামড়ায় ভাঁজ পড়া ও বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না এই কোলাগেন।
  • মাড়ি থেকে রক্ত পড়া, ফুলে যাওয়া ইত্যাদি দূর করতে লেবু অত্যন্ত কার্যকরী। লেবুতে থাকা ভিটামিন সি দাঁতের মাড়িকে শক্ত ও মজবুত করে।
  • লেবু হজম শক্তি বাড়াতে সহায়তা করে। এছাড়াও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে থাকে। লেবু শরীর থেকে ক্ষতিকর টক্সিন দূর করে থাকে।
  • লেবুর রস শরীর থেকে মেদ ঝরাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন একটা করে লেবু খেলে আপনার শরীর থেকে অতিরিক্ত ওজন কমে যাবে। ফলে আপনার যৌবন থাকবে অনেক দিন পর্যন্ত।
  • শরীরের জন্য অত্যন্ত কার্যকরী উপাদান হলো এন্টিঅক্সিডেন্ট যা লেবুর রসে পাওয়া যায়। আমাদের শরীরের মৃত কোষ কে সতেজ করতে সাহায্য করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীলের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
  • লেবুর রসে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীলের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। এছাড়াও লিভার, হাড়, স্টমাক, বেস্ট ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে লেবু রসে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট।

চুলের যত্নে লেবুর উপকারিতা

চুলের যত্নে লেবুর উপকারিতাঃ
  • মাথার ত্বক পরিষ্কার ও চুলকে ঝলমলে রাখতে লেবু ব্যবহার করুন।
  • নারকেল তেল,পেঁয়াজের রস ও লেবুর রসের সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করলে চুল দ্রুত লম্বা ও ঘন হবে।
  • চুল পড়া বন্ধ করতে চুলে লেবুর রস, অ্যালোভেরা ও ডিমের সাদা অংশ ব্যবহার করুন।
  • সপ্তাহে তিন থেকে চার দিন লেবুর রস ও জলপাইয়ের তেল একসাথে মিশিয়ে সম্পূর্ণ চুলে ব্যবহার করুন। এতে চুল পড়া বন্ধ করার পাশাপাশি চুলের আগা ফাটা কমবে।
  • প্রাকৃতিকভাবে চুলকে ঝলমলো করতে মেথির সঙ্গে লেবুর রস ব্যবহার করুন।

খালি পেটে লেবু পানি খাওয়ার অপকারিতা

অনেকেই সকাল বেলা খালি পেটে লেবু পানি খেয়ে থাকেন। কিন্তু সকল বেলার খালি পেটে লেবু পানি খাওয়া উপকারিতা কিংবা অপকারিতা সে বিষয়ে কোনো ধারণা নেই। খালি পেটে লেবু খাওয়ার কারণে শরীরে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দেয় যেমন ক্ষুধা মন্দা, বমি বমি ভাব, গ্যাস্টিকের সমস্যা ইত্যাদি দেখা দিতে পারে। লেবু আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী।
কিন্তু সকালে খালি পেটে লেবু খেলে উপকার না ও হতে পারে। লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে যা আমাদের দেহের হাড় ও দাঁতের গঠন এ সাহায্য করে। খালি পেটে লেবু খাওয়ার কারনে কি কি অপকারিতা দেখা দিতে পারে সে সম্পর্কে জেনে নেওয়া যায়-

দাঁতের ক্ষয়
লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে এবং অত্যাধিক লেবু পানি খাওয়ার ফলে দাঁতের এনামেল নষ্ট হয়ে যেতে পারে। গবেষণায় জানা গেছে লেবুর রস কার্বনেটেড কোমল পানীয়র মতো দাঁতে হয় সৃষ্টি করে। লেবু পানি পান করার পর দাঁত ব্রাশ করা থেকে এড়িয়ে চলুন। দাঁতের ক্ষয় এর ঝুঁকি কমাতে লেবু পানির পাশাপাশি প্রচুর পরিমাণে সাধারণ পানি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

হজমে সমস্যা
খালি পেটে লেবু পানি পান করার কারণে শরীরে প্রয়োজনীয় পেপসিন ভেঙে যায়। পেপসিন খাদ্য হজমে সহায়তা করে। লেবুতে থাকা সাইট্রিক এসিড আমাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর বিভিন্ন এনজাইম তৈরি করে। এর ফলে খাবার ঠিকমতো হজম হয় না এবং পেটের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা সৃষ্টি হয়। তাই খাদ্য হজম ঠিক রাখতে খালি পেটে লেবু পানি পান করা থেকে এড়িয়ে চলুন।

গ্যাস্টিকের সমস্যা
ভিটামিন সি দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। তবে অতিরিক্ত ভিটামিন সি শরীরের জন্য ক্ষতিকর। অত্যাধিক পরিমাণে লেবু বা লেবু পানি খাওয়ার ফলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দেখা দিতে পারে এবং হতে পারে বমি বা বমি ভাব। গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করতে অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

ঘন ঘন প্রসাব ও ডিহাইড্রেশন
লেবু তে ভিটামিন সি রয়েছে যা অতিরিক্ত পরিমাণে সেবন করার কারণে কিডনিতে পাথরের উৎপাত বাড়ায় । ঘনঘন প্রস্রাবের কারণে শরীর থেকে ইলেকট্রোলাইটস বের হয়ে যায় যার ফলে ড্রিহাইড্রেশন, শরীরে ক্লান্তি লাগা, ঠোঁট শুষ্ক ও অত্যাধিক তৃষ্ণা সমস্যা দেখা দিতে পারে।
আরো পড়ুনঃ শীতে ঠোঁট ফাটা থেকে মুক্তি পাওয়ার ১৫ টি ঘরোয়া উপায় জেনে নিন 
মাইগ্রেন বা মাথা ব্যথা
অতিরিক্ত লেবু পানি খাওয়ার ক্ষতিকর দিকগুলোর মধ্যে মাথা ব্যথা বা মাইগ্রেন অন্যতম। লেবু্র মতো সাইট্রাস জাতীয় ফল মাথা ব্যথা বা মাইগ্রেনের সমস্যা সৃষ্টি করে। যাদের দীর্ঘমেয়াদি মাইগ্রেন সমস্যা রয়েছে প্রতিদিন লেবু পানি খাওয়ার ফলে আরো ঘন ঘন এ আক্রমণ অনুভব করতে পারে।

রক্তে আয়রনের মাত্রা বেড়ে যাওয়া
আয়রন আমাদের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় উপাদান। অতিরিক্ত ভিটামিন সি আমাদের রক্তের আয়নের মাত্রা বৃদ্ধি করে। রক্তে অতিরিক্ত মাত্রায় ভিটামিন সি আমাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর। এছাড়া ও শরীরে নানা অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ক্ষতি হতে পারে। শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য খালি পেটে লেবু পানি খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

অতিরিক্ত লেবু খাওয়ার উপকারিতা

লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি ও পটাশিয়াম সহ বিভিন্ন উপাদান। যা আমাদের শরীরের জন্য উপকার করে থাকে। তবে অতিরিক্ত লেবু খাওয়ার কারণে শরীরে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা সৃষ্টি হয়। অতিরিক্ত কোন কিছুই ভালো না। নির্দিষ্ট সময়ে পরিমাণ মতো লেবু খাওয়া উচিত। অতিরিক্ত লেবু খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন।
উপকারিতাঃ
  • লেবুতে থাকা ভিটামিন সি উপাদান শরীরের জন্য অ্যান্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করে যা ঠান্ডা লাগা রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।
  • লেবু ক্যান্সারের কোষ ধ্বংস করতে সাহায্য করে।
  • লেবু অতিরিক্ত ওজন কমাতে অনেক কার্যকরী।
  • লেবুর রস ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করতে সাহায্য করে।
  • লেবু খাওয়ার ফলে শরীরের অতিরিক্ত ক্ষতিকর টক্সিন দূর করে এবং শরীরকে পরিষ্কার রাখতে সহায়তা করে।
  • লেবুতে থাকা ভিটামিন সি স্কার্ভি রোগ প্রতিরোধ করে।
  • উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ভিটামিন সি অনেক কার্যকর।
  • খালি পেটে হালকা গরম পানির সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে খেলে শরীরের পিএইচপি ভারসাম্য ঠিক রাখে এবং হজম শক্তি বৃদ্ধি করে।

লেবুর খোসা খাওয়ার নিয়ম

লেবুর মতো লেবুর খোসাও শরীরের জন্য অনেক উপকারী। লেবুর খোসাতে বিভিন্ন ধরনের রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা রয়েছে। লেবুর খোসা ভিটামিন সি ও সাইট্রিক এসিড থাকে যা আমাদের দাঁত ও দাঁতের মাড়ি থেকে স্কার্ভি রোগ দূর করে। লেবুর খোসা মেদ ভুড়ি কমাতে অত্যন্ত কার্যকর। লেবুর খোসায় সাইট্রাস বায়ো নামক উপাদান রয়েছে যা শরীরের ক্লান্তি কমাতে সাহায্য করে।

গরম পানিতে লেবু খাওয়ার অপকারিতা

অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য অনেকে গরম পানির সঙ্গে লেবু মিশিয়ে খায়। তবে জানে না যে গরম পানির সাথে লেবুর রস মিশিয়ে খাওয়ার ফলে শরীরে কি কি ক্ষতি হতে পারে। ভিটামিন সি গরম পানিতে দিলে ভিটামিন সি এর কার্যক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায় এবং শরীরে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। তবে যদি সঠিক একটু সঠিক টিপস জানা যায় তাহলে খুব সহজেই ওজন কমানো যায় প্রাকৃতিক ভাবে। তাহলে জেনে নিন গরম পানিতে লেবু খাওয়ার অপকারিতা।
  • গরম পানিতে লেবুর রস মিশালে লেবুতে থাকা ভিটামিন সি নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে আপনার শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।
  • গরম পানির সাথে লেবুর রস মিশালে সাইটিক এসিডের কার্যক্ষমতা বেড়ে যায়। এর ফলে পেটে অ্যাসিডিটির সমস্যা বেড়ে যেতে পারে।
  • গরম পানিতে লেবু দাঁতের এনামেল ক্ষয় করে। গরম পানির সাথে লেবুর রস মিশিয়ে খাওয়ার ফলে সাইট্রিক এসিডের পরিমাণ বেড়ে যায়। যার ফলে দাঁত খুব দ্রুত নষ্ট হতে থাকে।
  • অতিরিক্ত ওজন হওয়ার কারণে যাদের প্রেসার লো গরম পানিতে লেবুর রস খাওয়ার ফলে তাদের পেশার আরও লো হয়ে যায়।
  • গরম পানির সাথে লেবুর রস মিশিয়ে খাওয়ার পর পেট ভরে খাবার না খেলে পেটের বিভিন্ন স্থানে ব্যথা হতে শুরু করে।

পরামর্শ মুলক টিপস

লেবুর আমাদের জীবনে নিত্যদিনের সঙ্গী। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা রয়েছে অনেক। লেবু আমাদের শরীরকে সতেজ রাখার পাশাপাশি শরীলের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে। তেমনি অতিরিক্ত লেবু খাওয়ার ফলে আমাদের শরীরে কি কি ক্ষতি হয় সে সম্পর্কেও আপনারা জানতে পেরেছেন।

আশা করছি আজকের আর্টিকেল সম্পূর্ণ পড়লে আমার লেখা এই লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা পোস্টটি আপনাদের ভালো লাগবে এবং পরে আপনারা উপকৃত হবেন। এরকম প্রয়োজনীয় তথ্য পেতে নিয়মিত আমার লেখা আর্টিকেল গুলো পড়ুন সম্পূর্ন আর্টিকেলটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url